21 October 2015

শিউলি

নাজমা সুলতানা তুহিন

খুব শৈশবে শিউলি ফুল আমাকে খুব টানত। শিউলি ফুলের ঘ্রানে আমি কি করে যেন বুঝে যেতাম শরতএসেছে। সেই থেকে শরত আমার প্রিয় ঋতু। প্রিয় ঋতুতে খুব ভোরে উঠে শিউলি কুড়াতাম।
ক্লাস ফোরে পড়াকালীন সময়ে আমরা থাকতাম টাংগাইলে। বাবার চাকরীর সুবাদে বিশাল এক হিন্দু বাড়ি ছিল আমাদের আবাস। সেই দোতলা বাড়ির বেডরুমের সাথে লাগোয়া বিশাল একটা ছাদ। নানা ধরনের ফুল গাছ দিয়ে ছাদটি ঘেরা ছিল। তার মধ্যে একটি গাছ ছিল শিউলি।
শরতকালে পুরো ছাদ ছেয়ে থাকত শিউলি ফুলে।খুব ভোরে আব্বু ঘুম থেকে তুলে বলত-যা ছাদে গিয়ে দেখে আয়। আধো ঘুম, আধো জাগরনে দেখতাম সাদা ও
জাফরানের এক অপূর্ব
মিশ্রন। সেই ছেলেবেলায় সেই ছোটমনে কি যে এক আনন্দের সঞ্চার হতো। তারপর আব্বু বলত যা কাঁচি আর সুঁই-সূতা নিয়ে আয়। আব্বু কাঁচি দিয়ে জাফরান অংশটুকু কেটে দিত আর আমি সুঁই-সূতা দিয়ে সাদা অংশটির মালা গাঁথতাম।
এই রকম নির্মল আনন্দ পাওয়া হয় না বহুদিন। শরত এলে আব্বুর কথা খুব মনে পড়ে।